কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয়

কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয়

হ্যালো সবাইকে আশা করি সকলে অনেক ভাল আছেন আজকে আমরা কথা বলব কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয় এই বিষয়ে এ বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অবশ্যই আপনার জানা উচিত তো অবশ্যই মনোযোগ সহকারে দেখুন আশা করি সকল তথ্য বুঝতে পারবেন তো চলুন শুরু করা যাক।

 

মাসিকের বিলম্ব বা অনিয়মিত্য অনেক নারীর জীবনে এক বিষয় যেটি তাদের চিন্তিত করে। এর ফলে, অনেকে প্রশ্ন করেন, “আমি কি গর্ভবতী হয়ে গেছি?” এই নিবন্ধে, আমরা এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেতে চেষ্টা করবো, সেইসাথে বিভিন্ন কারণ ও করণীয় নিয়েও আলোচনা করবো।

 

বায়োলজিকালি মাসিক কী?

মাসিক, বা মেনস্ট্রুয়েল সাইকেল, একটি প্রাকৃতিক, মাসিক শারীরিক প্রক্রিয়া যা প্রজননসংক্রান্ত নারীর শরীরে ঘটে। এটি মূলত একটি এন্ডোমেট্রিয়াল লাইনিং (গর্ভাশয়ের ভিতরের পর্দা) প্রেরণ করে, যদি কোনো ডিম্বজনক ঘটনা না ঘটে।

 

এই লাইনিং এরপর শরীর থেকে বের হয়, এবং এটি হল মাসিক রক্তপাত। এই সাইকেল প্রায়ই ২৮ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে ঘটে এবং এর বিভিন্ন দশা রয়েছে—ফলিকুলার দশা, ওভুলেটরি দশা, লিউটিনাইজিং দশা ইত্যাদি।

 

কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয়

মাসিক যদি ৫-৭ দিনের জন্য বিলম্বিত হয়, তবে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তবে, এটি শুধুমাত্র একটি নির্দেশিকা, না কি নিশ্চিততা। গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা প্রধানত মেনস্ট্রুয়েল সাইকেলের ওভুলেটরি ফেজের সময় বেড়ে যায়।

 

এই দশার সময়ে, একটি বৃদ্ধিশীল ডিম্ব (ওভুলাম) ফলোপিয়ান টিউবের দিকে যায় এবং স্পার্মের সাথে মিলন করতে প্রস্তুতি নেয়। এই দশা প্রায়ই মেনস্ট্রুয়েল সাইকেলের ১৪থে দিনে ঘটে, তবে এটি ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি ভিন্ন হতে পারে।

 

সেই সময়ের মধ্যে, যদি স্পার্ম ও ডিম্বের মিলন ঘটে, তবে গর্ভধারণ ঘটে। এই সময়ে সম্পার্ক স্থাপনের মাধ্যমে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা সর্বোচ্চ হয়। তবে, মেনস্ট্রুয়েল সাইকেলের অনিয়মিত্য বা অন্যান্য শারীরিক কারণে, ওভুলেটরি দশা সঠিক সময়ে না ঘটতে পারে, এবং এর ফলে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

তবে সাধারণত এই মাসিক মিস হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে ৯০ শতাংশ মহিলাদের গর্ভধারণের লক্ষণ গুলো দেখা দিতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রে হয়তো এর আগেও বোঝা যেতে পারে। কিন্তু প্রেগনেন্সির সম্পূর্ণ লক্ষণ প্রকাশ পেতে ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে।

 

উপসংহার

মাসিক না হলে সবসময় গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এর অনেক কারণ থাকতে পারে এবং একজন ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আশাকরি আজকের এই আর্টিকেল আপনাদের অনেক উপকারে আসবে।

 

এই ধরনের নিত্য নতুন আর্টিকেল পেতে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন। আপনার পছন্দের অথবা কোনো জিনিস জানার থাকলে তাহলে আমাদের জানতে পারেন আমরা সেই বিষয়ে আরটিকেল লেখার চেষ্টা করবো।

 

FAQs

  1. কত দিন বিলম্বে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়?
  • ৫-৭ দিন পর পরীক্ষা করা উচিত।
  1. গর্ভবতী না হলে অন্য কি কি কারণ হতে পারে?
  • স্ট্রেস, হরমোনাল ইম্ব্যালেন্স, ওজনের অনিয়মিত্য ইত্যাদি।
  1. কি ধরণের পরীক্ষা নেওয়া উচিত?
  • ব্লাড টেস্ট এবং উল্ট্রাসাউন্ড।
  1. মাসিকের বিলম্ব অথবা অনিয়মিত্য কীভাবে করে ঠিক করা যাক?
  • ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া।
  1. গর্ভবতী হলে কী করতে হবে?
  • ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

 কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয়

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top